জঙ্গীবাদী ও চরমপন্থী যুবকদের উদ্দেশ্যে


মহানবী সা. বলেন, ‘অচিরেই শেষ যামানায় একটি নির্বোধ যুব-দল হবে, যারা লোক সমাজে সবার চাইতে উত্তম কথা বলবে। কিন্তু ইমান তাদের গলদেশের অভ্যন্তরে প্রবেশ করবে না। তারা দ্বীন থেকে এমনভাবে বের হয়ে যাবে, যেমন তীর শিকার ভেদ করে বের হয়ে যায়……… [বুখারী/৩৬৫৪; মুসলিম, মিশকাত/৩৫৩৫]

ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি ও অতিরঞ্জন, মতভেদের সময় উগ্রবাদী মনোভাব ও কট্টরবাদী সমালোচনা। অবশ্য এমনটি ঘটে দ্বীন সন্বন্ধে সঠিক জ্ঞান না থাকার ফলেই। ফাটা ঢেকির শব্দ বেশি হয়। আর সেই শব্দ তর্ক-বিতর্ক থেকে দ্বন্ধ-দাঙ্গা এবং তার পরেই জিহাদের দুলদুলে সওয়ার করিয়ে সন্ত্রাসবাদে পৌছে দেয়। অবশ্য এই অতিরঞ্জনকারীদের ধর্মবিষয়ক প্রজ্ঞা কম হলেও ইবাদত বিষয়ক প্রচেষ্টা অনেক বেশি। আর এরা সাধারণত আবেগপ্রবণ উদীয়মান যুবক হয়। যাদের উদ্যম বেশি, কিন্তু অভিজ্ঞতা কম। যেমন বিদ্রোহী খাওয়ারেজরা অনুরুপ ছিল।
এই শ্রেণীর যুবকরা জানেনা যে, শরীয়তে মঙ্গল আনয়ন অপেক্ষা অমঙ্গল দূরীকরণ অধিক প্রাধাণ্যপ্রাপ্ত। এরা জানেনা বা মানেনা যে, একই কাজের পশ্চাদে যদি লাভ ক্ষতি দুই থাকে তাহলে লাভ করার চেষ্টা না করে ক্ষতি যাতে না হয় তারই চেষ্টা করতে হয়। অবশ্য লাভের অংশ বিশাল এবং ক্ষতির অংশ কিঞ্চিত হলে সে কথা ভিন্ন।
এরা জানেনা বা মানেনা যে, মন্দকে মন্দ দিয়ে দূর করা যায়না। পেশাব দিয়ে পায়খানা ধুয়ে পবিত্রতা অর্জন হয়না। আগুনকে আগুন বা পেট্রল দিয়ে না নিভিয়ে পানি দ্বারা নিভাতে হয়।
যেমন কোন মন্দ দূর করতে গিয়ে যেন অধিকতর মন্দ সৃষ্টি না হয়ে যায়। নচেত সেই মন্দ দূর করা বাঞ্ছনীয় নয়। আঙ্গুলের ব্যাথা দূর করতে গিয়ে যদি সারা শরীরে ব্যাথা সৃষ্টি হওয়ার আশংকা হয় অথবা মৃত্যুর ভয় থাকে, তাহলে সেই ব্যথা দূর করা নিশ্চয় ভালো নয়।
এরা জানে, ইমানী জোশ চাই, দ্বীনি জযবা চাই, ইওলামী স্পৃহা চাই, স্পিরিট চাই, স্পীড চাই সংগ্রামের তুফান চাই, আন্দোলনের ঝড় চাই, কিন্তু একথা জানেনা বা মানেনা যে এসব কিছুতে লাগাম চাই, ব্রেক চাই, সংযম চাই, বাঁধ চাই, বন্ধন চাই। নচেত মহাসর্বনাশ অবশ্যম্ভাবী।

[সকলকে অনুরোধ করব আব্দুল হামীদ মাদানীর ‘ধর্মের নামে সন্ত্রাস ও গোঁড়ামী’ বইটি পড়ার। এই কয়েকটি অধ্যায় ভালোভাবে পড়ুন – কাফেরবাদ, সন্ত্রাসবাদ, মুসলিমদের মাঝে সন্ত্রাস সৃষ্টির কারণ, মুসলিম সন্ত্রাসের ঐতিহাসীক প্রেক্ষাপট, উগ্রপন্থীদের বৈশিষ্ট্য,সন্ত্রাস রুখার উপায়]

এখান থেকে ৫১ নাম্বার বইটি ডাউনলোড করুন – ক্লিক করুন

Advertisements

About সম্পাদক

সম্পাদক - ইসলামের আলো
This entry was posted in আলোচনা, ইসলাম সম্পর্কে ভুল ধারণা, ইসলামী রাষ্ট্র, উপদেশ, সন্ত্রাসবাদ. Bookmark the permalink.

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s