একটি মাত্র বিয়ে করার উপদেশ একমাত্র ইসলাম ধর্মই দেয়!


                                                শেখ ফরিদ আলম

পৃথিবীতে প্রায় কয়েকশ   ধর্ম আছে | ইসলাম পৃথিবীর দিতীয় বৃহত্তম ধর্ম | পৃথিবীর প্রত্যেক তিন জন মানুষের একজন মুসলমান | মাত্র সারে চোদ্দসশ  বছরে এই ধর্ম সারা পৃথিবি  জুড়ে বিস্তৃতি লাভ  করেছে |

মিডিয়া ও ইসলামের সমালোচকরা এই বলে অপবাদ দেয় যে, ইসলাম নারীদের অধিকার দেয় না, বহু বিবাহ বৈধ করেছে ইত্যাদি|এই বহু বিবাহ নিয়ে কয়েকটি কথা বলা যাক | আল্লাহ তালা বলেন,”বিবাহ কর নারীদের মধ্য হতে যাকে তোমাদের ভালো লাগে, দুই ,তিন আথবা চারটি | আর যদি অসন্খা কর যে (স্ত্রীদের মাঝে) সুবিচার করতে পারবে না, তাহলে (মাত্র) একটি (বিবাহ কর)….সুরা নিসা ০৩:০৩

এই আয়াতে বোঝা যাচ্ছে যে কোনো মুসলমান ইচ্ছা  করলে একের অধিক বিয়ে (চারের বেসি নয়) করতে পারে |  কিন্তু তাতে শর্ত হলো তাকে তার স্ত্রী দের মাঝে সুবিচার অর্থাৎ একাই রকম ভালবাসা, খাদ্য, বস্ত্র দিতে হবে এবং তাদের একের উপর অপর কে প্রাধান্য দেওয়া চলবে না | আর যে একাধিক বিয়ে করতে ইচ্ছুক কিন্তু তার মনে হচ্ছে তার স্ত্রী দের মাঝে সুবিচার বা সমতা রাখতে   পারবে না তাহলে তাকে একটি বিয়েতেই সন্তুষ্ট  থাকতে বলা হচ্ছে  | স্ত্রী দের মাঝে সুবিচার করা নিশয় কঠিন কাজ | আল্লহ মানুষ কে সাবধান করে বলেছেন  ,” তোমরা  যতই আগ্রহ রাখো না কেন, তোমাদের স্ত্রীদের প্রতি সমান  ব্যবহার    করতে কখনো সখ্ক্ষম হবে না……” সুরা নিসা ০৪:১২৭

উপরের দুটি আয়াত থেকে স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে যে ইসলামে চারটি বিবাহ করা বৈধ কিন্তু একটি বিবাহ করতে উপদেশ দেওয়া হয়েছে এবং বহু বিবাহে ভীতি প্রদর্শন করা হয়েছে | যেমন আল্লাহ বলেন “….তোমরা এক জনের প্রয়ই সম্পূর্ণরূপে ঝুকে পর না ও অপর কে (অপর স্ত্রীকে) ঝুলন্ত অবস্তায় রেখে দিও না …” -সুরা নিসা ০৩:১২৭

এ ব্যপারে মুহাম্মদ (স:) বলেন,” যে ব্যক্তির দুটি স্ত্রী আছে, কিন্তু তার মধ্যে একটির দিকে ঝুকে যায়, এরূপ ব্যক্তি কিয়ামতের দিন অর্ধদেহ ধসা অবস্থায় উপস্থিত  হবে | (আহমেদ ২/৩৪৭; আসবে সুনান; হাকিম ২/১৮৬) ইবনে হিব্বান ৪১৯)

বলা হয়ে থাকে যে, ইসলাম বহু বিবাহ বৈধ করেছে | আসলে ইসলাম বহু বিবাহের একটা সীমা নির্ধারণ করে দিয়েছে, যে কেউ চারটির বেসি বিবাহ করতে পারবে না | কারণ সে যুগে এমন কি আজ থেকে এক  দেড়শ  বছর আগে এই ভারতেই অনেক মানুষ ৩০-৫০-৮০ এমন কি ১০০ আরো বেশি বিবাহ করত! বিশাস না হলে ইশ্বর চন্দ্র  বিদ্যাসাগরের ‘বহু বিবাহ’ ও ‘বাল্য   বিবাহ’ বই দুটি পরে দেখতে পারেন | আপনি যদি রোম সাম্রাজ্যের , গ্রীক সাম্রাজ্যের অথবা পৃথিবীর যে কোনো ইতিহাস পরেন তাহলে দেখবেন যে সে যুগে মানুষ অনেক স্ত্রী রাখত | সে জন্য দেভেন্পর্ট  বলেছেন যে, “মুহাম্মদ (স) বহু বিবাহ কে সীমার বাধনে বেধে ছিলেন”|

ইসলাম চারটি বিবাহকে বৈধ বলেছে  এবং একটি বিবাহ করতে উপদেশ দিয়েছে | সকল ধর্মেই বহু বিবাহ বৈধ | কিন্তু কোনো সীমা নির্ধারণ করে দেওয়া হইনি | অর্থাত আপনি যত ইচ্ছা বিয়ে করতে পারেন কোনো আসুবিধা নেই | পাশ্চাত্যের  বিখ্যাত  দার্শনিক লিটনার তার  “মহামেদানিসম” বই এ লিখেছেন,” অপরিমিত বহু বিবাহ প্রথাকে মুহাম্মদ (স) রুখে দিয়ে ছিলেন” | তিনি আরো লিখছেন “মুহাম্মদ (স) এর আইনের উত্সাহ   কিন্তু স্পষ্টতই একটি বিবাহের পক্ষেই  “| স্পস্ট   ভাবে   জেনে রাখা উচিত, ইসলাম কিন্তু লাগাম ছাড়া বহু বিবাহ প্রথাকে নিসিদ্ধ করেছে | মধ্য যুগে বল্লাল সেন কলিন্ন  সেন কৌলিন্য প্রথার মুখোসে যে বহু বিবাহ প্রথার প্রচলন করেছিলেন  , সেই  প্রথার সুযোগ নিয়ে কুলীন ব্রাহ্মণ শতাধিক বিবাহে মেতে উটত | বৃদ্ধ ব্রাহ্মণ ধর্মের নামে বহু কিশোরী কে ভোগ করত | নারীত্বের অপমানের কি চরম  পদ্ধতিই  না চালু ছিল মধ্যযুগের  সেই সমাজে |

ভারয়ে কোনো হিন্দু কিংবা আমেরিকা বা ইংলান্ডে কোনো খ্রিসটান  বহু বিবাহ করতে পারবে না, সেটা দেশের সংবিধান কোনো ধর্মীয় আইন নয় | ধর্ম অনুযায়ে তারা বহু বিবাহ করতে পারবে | যখন পৃথিবীর সকল ধর্ম বহু বিবাহ কে বৈধ করেছে তখন ইসলাম কে নিয়ে সমলোচনা কেন ? আল্লাহ সখল কে হেদায়াত দিন ….. আমিন !

Advertisements

About সম্পাদক

সম্পাদক - ইসলামের আলো
This entry was posted in ইসলাম সম্পর্কে ভুল ধারণা. Bookmark the permalink.

7 Responses to একটি মাত্র বিয়ে করার উপদেশ একমাত্র ইসলাম ধর্মই দেয়!

  1. পরিচালক বলেছেন:

    আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ। বিষয়টি আমাকে খুব ভাল লেগেছে।আল্লাহ তাআলা আপনাক
    উত্তম প্রতিদান দান করুন। আরও সুন্দর সুন্দর বিষয়উপহার দিবেন এই প্রত্যাশা রইল।

  2. Numan Ahmed বলেছেন:

    অনেক গুরুত্বপূর্ণ পোষ্ট। মাশাআল্লাহ।

    আল্লাহ সখল কে হেদায়াত দিন ….. আমিন !

  3. Sk Hasanujjaman বলেছেন:

    articles porlam, etodin Islam somporke puruser bohu bibaher bisye kharap dharona 6ilo, status t pore valo laglo j Islameo purusder i66amoto bohu bibaho nisedh a6e,& wife er o marjada a6e..

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s