|| নিজেকে ভালোবাসুন এবং ক্ষমা করে দিন ||


62b7c4d9-f8d1-4a1f-bbab-0ff219a9856c_1.1b4438d9578c0e3f92d7cca311aed537

© মুইজ বুখারি

আমরা আমাদের অতীত জীবনের দিকে তাকালে এতো বেশি ভুল এতো বেশী পাপ দেখতে পাই যে, নিজেকে ভালোবাসা অসম্ভব হয়ে পড়ে। নিজেকে ভালোবাসতে পারা যে কত গুরুত্বপূর্ণ তা আমরা হয়তো অনুভব করতে পারছি না। এটি আপনার জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তগুলোর একটি। যে সিদ্ধান্তটি আপনার জীবনের অন্য সব সিদ্ধান্তকে কোন না কোন ভাবে প্রভাবিত করবে তা হলো সর্বান্তকরণে নিজেকে গ্রহণ করে নেয়ার সিদ্ধান্ত।

এটি সরাসরি আপনার সম্পর্কগুলোকে প্রভাবিত করে, আপনার চাকরি, আপনার অবসর সময়, আপনার ভবিষ্যৎ তথা সমগ্র জীবনকে। আপনি যদি নিজেকে ভালোবাসতে না পারেন তাহলে অন্যদের কাছ থেকে ভালোবাসা পাওয়া কষ্টকর হয়ে পড়বে। নিজের মূল্য বুঝতে হলে এবং আত্মবিশ্বাস গড়তে হলে সচেতনতা এবং ভালোবাসার সাথে নিজের দিকে লক্ষ্য করতে হবে। গ্রহণযোগ্যতা এবং ভালোবাসা নিজের ভেতর থেকেই আসতে হবে।

আরেকটা বিষয় মনে রাখুন, নিজেকে গ্রহণ করে নেয়া এবং ভালোবাসা এটা একবারেই করে ফেলার মত বিষয় না, এটা একটা চলমান প্রক্রিয়া। তাই নিচে বর্ণিত এই কয়েকটি কাজ দিয়ে আজ থেকেই শুরু করতে পারেন, ইনশাআল্লাহ।

১। এই মুহূর্তে জীবনের যে পর্যায়ে আছেন তাকে গ্রহণ করে নিন। 
এটা আপনার ভাগ্যের অংশ, পেছনে ফিরে গিয়ে এটার পরিবর্তন করতে পারবেন না। এই জীবনের একটা সৌন্দর্যমণ্ডিত ব্যাপার হলো, কোনো কিছুই স্থায়ী নয়, সবকিছুর পরিবর্তন ঘটে।…… অভিযোগ করা, ঘ্যানঘ্যান করা বন্ধ করুন। মনে মনে এই প্রশান্তি রাখুন যে বর্তমানে আপনি যে চ্যালেঞ্জ এবং পরীক্ষায় পতিত আছেন একসময় তার সমাপ্তি ঘটবে।

২। নিজেকে ভালবাসুন এবং ক্ষমা করুন। 
সকল সম্ভাব্য উপায়ে নিজের উত্তরোত্তর উন্নতির চেষ্টা করুন। আপনার নিজের জীবনের যে ভালো দিকগুলো আছে তার দিকে লক্ষ্য করুন এবং আপনি যে নিখুঁত নয় তা মেনে নিন। এটার মানে এই নয় যে, আপনি ত্রুটিগুলো দূর করার চেষ্টা করবেন না। বরং এর মানে হলো আপনি অবশ্যই চেষ্টা করবেন, কিন্তু নিজের প্রতি একটু সদয় হয়ে, আরেকটু অমায়িক হয়ে। যদি অতীত জীবনে এমন কোনো অন্যায় করে থাকেন যার ফলে নিজেকে মূল্যহীন মনে হয়, তাহলে নিজেকে ক্ষমা করে দিন।

৩। উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা ছেড়ে দিন। 
এটা জীবন ধ্বংস করার এক নীরব ঘাতক। উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা কোন কিছুই পরিবর্তন করতে পারে না, বরং সুচিন্তিত কাজই পারে কোনো কিছুর পরিবর্তন করতে।

৪। আল্লাহর সাথে সম্পর্ক বৃদ্ধি করুন এবং কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করুন। 
আল্লাহ আপনাকে যেমন করে তৈরি করেছেন তার জন্য কৃতজ্ঞ হউন। আপনার শক্তি, সামর্থ্য, প্রতিভার দিকে লক্ষ্য করে কৃতজ্ঞ হউন। আমরা যে জীবিত এবং সুস্থ তার জন্য আমাদের কৃতজ্ঞ হওয়া উচিত। এভাবে চিন্তা করুন যে, জীবনে একটা ইতিবাচক পরিবর্তন আনার জন্য আমাদের পরিপূর্ণ সামর্থ্য আছে।

 

Advertisements
Posted in ইসলাম | এখানে আপনার মন্তব্য রেখে যান

সুখী বিয়ের উপকরণ: পুরুষদের আত্মউন্নয়নের তিনটি দিক / হালেহ বানানী।


Romantic-love-mood-hearts-wallpaper-cool-photos

এখন পুরুষদের ব্যক্তিগত উন্নয়নকে তিন ভাগে ভাগ করা যেতে পারে–

প্রথমতঃ আত্মসংযম করা।

মৌখিক, মানসিক বা দৈহিকভাবে অভদ্র আচরণ করবেন না। এটা একটা বড় সমস্যা, যেটা নিয়ে অনেক বোন তাদের স্বামীর ব্যাপারে অভিযোগ করেন। আমার স্বামী, তার মেজাজ নিয়ন্ত্রণে থাকে না তিনি যখন মেজাজ হারান তখন চিত্কার চেঁচামেচি করেন। এবং আমাকে কষ্টদায়ক কথা বলেন এবং কখনও কখনও দুর্ভাগ্যবশত কিছু ভাইয়েরা এতটাই রাগান্বিত হন যে তারা তাদের স্ত্রীর প্রতি দৈহিকভাবে নির্যাতন করেন। আমার এক ক্লায়েন্ট ছিল যারা নবদম্পতি ছিলেন এবং তারা শ্বশুরবাড়ির সম্পর্কে আলোচনা করছিলেন, স্ত্রী তার শ্বশুরবাড়ির উপরে অনেক হতাশ ছিলেন এবং তিনি ক্রমাগত স্বামীকে অভিযোগ করতেন। স্বামী তাকে বলতেন, বন্ধ করো বন্ধ করো এসব কথা। আমি শুনতে চাই না। কিন্তু স্ত্রী ক্রমাগতভাবে স্বামীকে অভিযোগ করতেই থাকলেন এবং পরিশেষে স্বামী এতটাই রেগে গিয়েছিলেন যে তিনি তার স্ত্রীকে শেষ পর্যন্ত চড় মেরে বসেন। এরপর স্বামী একেবারে ভেঙে পড়েছিলেন। তিনি এরকম করেছিলেন, ”আমি কখনোই ভাবিনি আমি আমার স্ত্রীকে আঘাত করবো”। তিনি সেশনেই কাঁদছিলেন। ”সেটা আমি নই, এটা আমার চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যর সাথে মেলে না। কিন্তু সে বন্ধ করেনি”। তাই আমাদের আবেগ আমরা কিভাবে নিয়ন্ত্রণ করবো তা শিখতে হবে। এর কারণ হলো, একবার যদি আপনি কিছু বলে ফেলেন বা খারাপ আচরণ করেন আপনি কখনোই তা ফিরিয়ে নিতে পারবেন না এবং এটা এমন কিছু যা তাদের সম্পর্কটিকে চিরতরে বদলে দিয়েছিলো। যখন সম্পর্কের কোন পর্যায়ে দৈহিক নির্যাতন হয়, যখন আপনি আপনার সাথীকে কোন আক্রমণাত্মক বা কষ্টদায়ক কথা বলেন, আপনার সম্পর্ক আর আগের মত থাকে না। এবং আপনি তা আর ফিরে পাবেন না।

আমার একজন ভাইকে মনে পড়ছে তিনি থেরাপির জন্য এসেছিলেন এবং তিনি আমাকে বলেছিলেন আপনি জানেন, সব আমার দোষ ছিল। আমি তাকে বললাম, আপনি কি রসিকতা করছেন? তিনি বলেন, “এটি সত্যি। সব দোষ আমার ছিল। সে একজন বিস্ময়কর স্ত্রী ছিল। সে একজন চমৎকার মা ছিল। সে সবকিছু করেছে এবং আমি তার স্বীকৃতি দেই নাই। আমি তার প্রশংসা করি নাই আমি তাকে কিছু বলিনি। এখন সে বিবাহ বিচ্ছেদের জন্য মামলা দায়ের করেছে। বিবাহ বিচ্ছেদের জন্য মামলা দায়ের করেছে এবং আর এর জন্য আমি শুধু নিজেকেই দোষারোপ করছি।” এবং এটি এত দু:খজনক যে, যেদিন সে ভাই আদালতে গিয়েছিলো … তিনি আমাকে বলেন, আমি আদালতে গিয়ে আমার হাঁটুর উপর বসে পড়ি আমি তার পায়ে চুমু খাই, আমি তাকে বলেছিলাম দয়া করে এটা করো না, আমাদের বিবাহ শেষ করো না। কিন্তু অনেক দেরী হয়ে গিয়েছিলো।

এখন দ্বিতীয় যে কাজটির মাধ্যমে ভাইয়েরা নিজেদের উন্নত করতে পারেন, তা হলো- নিজের অভিব্যক্তি প্রকাশের করার মাধ্যমে।

আপনাকে নিজের অনুভূতি প্রকাশ করা শিখতে হবে। আমি জানি যে আপনাদের অনেকেরই এটা করতে ভাল নাও লাগতে পারে। এটা করতে অস্বস্তিকর বোধ হতে পারে। এটা করা আপনার ব্যক্তিত্বের অংশ নয়। কিন্তু স্ত্রীকে খুশি করার নিমিত্তে আপনার এটা করা দরকার। এবং আমাদের লক্ষ্য হলো আমাদের নেতিবাচক ব্যবহারগুলিকে অল্প অল্প করে সরিয়ে ফেলতে হবে। যতক্ষণ না আমরা আদর্শ ইসলামিক ব্যক্তিত্বে পরিণত না হই। আমাদের মাঝে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর মত হবার আকাঙ্ক্ষা থাকা দরকার। আমাদের ব্যক্তিত্ব যেমনি হউক না কেন নিজেদের উন্নয়নে সর্বদা সচেষ্ট থাকতে হবে যতক্ষণ পর্যন্ত না আমরা ভাল হতে পারি। এটা সত্যিই গুরুত্বপূর্ণ যে মানসিক উন্নতির জন্য ক্রমাগত শিখতে হবে। বিয়ের উপর এমন কিছু কোর্স করতে পারেন। নিজের উন্নতি করা যায় এমন কিছু বই কিনতে পারেন কিভাবে আপনি নিজেকে আরও ভাল বুঝতে পারবেন। হয়তো একসঙ্গে সন্তান প্রতিপালন বিষয়ক কোন কোর্স করতে পারেন। যেখানে উভয়ের আলোচনার বিষয় একই হবে। এবং আমি জানি আপনারা অনেকেই কর্মক্ষেত্রে এবং পরিবারের যোগান দেয়ার কাজে আটকে আছেন। আপনার যথেষ্ট সময় থাকে না। তাই হয়তো দু’জনে মিলে কোন একটা বই একসাথে পড়ার চেষ্টা করতে পারেন। হতে পারে একটি অডিও বই, দ্রুত গতিতে ছাড়ুন এটি একসঙ্গে শুনুন। এবং এটা নিয়ে আলোচনা করুন যেন দু’জন একই বিষয়ে কথা বলতে পারেন এবং আধ্যাত্মিক দিক দিয়ে এবং আবেগের দিক দিয়ে আরও উন্নত হতে পারেন।

শেষ জিনিসটা হলো আমি আপনাকে সুপারিশ করছি যে আপনি আপনার জীবনসাথীর জন্য আকর্ষণীয় হয়ে উঠুন।

তো, আপনি আপনার নিজের উপর কাজ করেছেন আপনি আপনার ব্যক্তিত্বের কিছু দিক পরিবর্তিত করেছেন। এবং তারপর খুঁজে বের করুন আপনার জীবনসাথী কী পছন্দ করেন। কারণ প্রত্যেক ব্যক্তির তাদের নিজস্ব পছন্দ এবং অপছন্দ আছে। এতএব খুঁজে বের করুন আপনার কেমন পোশাক আপনার সাথী পছন্দ করেন। তারা কোন কাজ করতে মজা পায়, আপনি কি করলে তিনি ভালবাসা অনুভব করেন। এবং আরেকটি বিষয় যে কোন ধরণের বিরক্তিকর আচরণ বন্ধ করুন। যখন কোনো দম্পতি আমার কাছে আসেন, আমি প্রথমে তাদের যা বলি তা হলো বিরক্তিকর আচরণ বন্ধ করুন। কারণ হয়তো আপনি না জেনেই বিরক্তিকর আচরণ করছেন, যা কিনা আসলেই আপনার জীবনসাথীর মন খারাপ করছে। আর যতবারই আপনি এটা করেন ততবারই সে মনে ভীষণ কষ্ট পায়। এতএব আপনার নেতিবাচক আচরণগুলি বন্ধ করতে হবে সর্বপ্রথমে। এবং তারপর প্রেমময় আচরণ আরম্ভ করুন। এমন কাজ করুন যেন আপনার জীবনসাথী ভালবাসা অনুভব করতে পারেন। তিনি যথাযথভাবে সমাদৃত হয়েছেন অনুভব করতে পারেন তাকে বুঝতে দিন তিনি আপনার এক নম্বর প্রাধান্য। আপনার সাথী যদি অনুভব করেন যে আপনার কাছে তিনি অগ্রাধিকার পান তাহলে তিনি খুব সুখী হবেন। সুতরাং সাধ্যমত চেষ্টা করুন এই জিনিসগুলি প্রয়োগ করুন। আপনার নিজের মধ্যে পরিবর্তন আনুন সর্বপ্রথমে। যেমন আল্লাহ বলেছেন, “আল্লাহ কোন জাতির অবস্থা পরিবর্তন করেন না, যে পর্যন্ত না তারা তাদের নিজেদের অবস্থা পরিবর্তন করে।” সুতরাং বৈবাহিক সম্পর্কে পরিবর্তন আনার আগে নিজের মাঝে পরিবর্তন আনুন। ইন’শা’আল্লাহ।

Posted in ইসলাম | এখানে আপনার মন্তব্য রেখে যান

সুখী বিয়ের উপকরণ: নারীদের আত্মউন্নয়নের তিনটি দিক / হালেহ বানানী


100-romantic-ways-to-show-your-love-on-valentine-s-day
আমি গত বিশ বছর ধরে থেরাপি করি। আমি লক্ষ্য করেছি যে সম্পর্ক উন্নত করার উদ্দেশ্যে নির্দিষ্ট কিছু চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য বোনদের মধ্যে আছে যা পরিবর্তন করা প্রয়োজন এবং সমানভাবে নির্দিষ্ট কিছু চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য ভাইদের মধ্যে আছে যা পরিবর্তন করা প্রয়োজন। নারীদের আত্ম উন্নতির বিষয়গুলোকে আমি তিনটি ভাগে ভাগ করে সংক্ষেপে তুলে ধরবো।

প্রথমটা হলো মানসিক স্থিতিশীলতা।

আপনার আবেগকে কন্ট্রোল করবেন, পাজি ড্রামাকুইন না হওয়া, বেশি প্রতিক্রিয়া না দেখানো, কান্নাকাটি না করা, বেশি চিৎকার চেঁচামেচি না করা। এর কারণ হলো ভাইরা তাদের স্ত্রীদের সম্পর্কে এইসব ব্যাপার নিয়েই সবচেয়ে বেশি অভিযোগ করেন। তারা মনে করেন যে তারা একটি ডিমের খোসার উপর রয়েছেন। তারা মনে করেন যে তারা এমন একটি টাইম বোমার সঙ্গে আটকে রয়েছেন তারা জানেন না কি তাকে বিস্ফোরিত করবে। এবং তাই এটা অনেকটা নিরাপত্তাহীনতা তৈরি করে এবং রিলেশনশিপের মাঝে অনাস্থা তৈরি করে। যেখানে স্বামী জানেন না কি তার স্ত্রীকে বিস্ফোরিত করবে। এবং তাই এরকম মানসিক স্থিতিশীলতা অর্জন করা যেখানে নিজের উপর নিয়ন্ত্রণ থাকে- এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

দ্বিতীয় জিনিসটা হচ্ছে নিরাপদ থাকা। (নিজেকে নিরাপদ মনে করা)।

আমি দেখেছি নারীরা তাদের সকল সম্পর্কের ক্ষেত্রে নিরাপত্তাহীনতায় ভোগেন। এটা হতে পারে তাদের বিয়ের ক্ষেত্রে, তাদের শ্বশুরালয়ের আত্মীয় স্বজনের ক্ষেত্রে, অথবা বন্ধু/বান্ধবের সাথে। এবং সেখানে সে একটি ভয়ভীতি বা অন্যদের সম্পর্কে অনিরাপদ বোধ করেন। তিনি অন্যদের কারণে হুমকির সম্মুখীন বোধ করেন বিশেষ করে অন্য নারী দ্বারা। তাই আমরা আমাদের আত্মমর্যাদাবোধ গড়ে তোলার জন্য কাজ করতে পারি। আমরা যদি আমাদের নিজেদের সম্পর্কে সত্যিই ভাল বোধ করি তখন আমরা আমাদের সম্পর্কগুলোতে অন্য নারীদের দ্বারা প্রভাবিত হবো না। এবং নিঃসন্দেহে এতে আমাদের বিবাহ আরও ভালো হবে, বন্ধুত্বের সম্পর্ক আরও ভালো হবে শ্বশুরবাড়ির আত্মীয়তার সম্পর্ক আরও ভালো হবে।

তৃতীয় জিনিসটা হলো জ্ঞান বাড়ানো।

অনেক বোনরাই মাশাআল্লাহ অত্যন্ত শিক্ষিত এবং বুদ্ধিমতী। এখন কি ঘটে যে, একবার যখন তাদের বিয়ে হয়ে যায় তারা ঘরের ভেতরে থাকতে পছন্দ করেন। বাচ্চাদের এবং বাড়ির যত্ন নিতে পছন্দ করেন যা সম্পূর্ণরূপে প্রশংসনীয় এবং সম্মানিত মাশাআল্লাহ। কিন্তু যা ঘটে যে তখন তারা তাদের মেধা বিকাশে সময় এবং মনোযোগ দেয়া বন্ধ করে দেন। তাই যা ঘটছে যে ভাইয়েরা কাজে যাচ্ছেন তারা তাদের উত্কৃষ্টতর শিক্ষা নিচ্ছেন তারা অগ্রসর হচ্ছেন যখন বোনরা অনুরূপ কাজ করতে পারেন না। তারা স্থবির হয়ে পড়েন এবং তারা তাদের সময় উৎসর্গ করছেন, কোরবানি করছেন পরিবারের জন্য। তারা সবকিছু ঠিকঠাক রাখছেন, তারা এত কিছু করছেন মাশাআল্লাহ। কিন্তু তারা তাদের মেধা বিকাশে ততটা সময় দিচ্ছেন না। এবং আমি মনে বুদ্ধিবৃত্তিক বৃদ্ধির প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখা গুরুত্বপূর্ণ। এর জন্য নিয়মিত পড়তে হবে, দুনিয়ার খবর রাখা, কি ঘটনা ঘটছে জানা। জ্ঞান বাড়ানো ক্রমাগত অব্যাহত রাখা। এতে আপনার সাথীর সাথে আপনার আর দূরত্ব তৈরি হবে না।

আমার একজন মহিলা ক্লায়েন্ট ছিলেন যার স্বামী একজন চিকিৎসক ছিলেন মাশাআল্লাহ। আর তার স্বামী ক্যারিয়ারে মেধা বিকাশের মাধ্যমে ক্রমাগত অনেক অগ্রগতি করছিলেন। কিন্তু তিনি (স্ত্রী) যেহেতু বাড়িতে থাকতেন আর তিনিও খুব বুদ্ধিমান ছিলেন, খুব শিক্ষিত ছিলেন। কিন্তু তিনি বাড়ীতে তার বাচ্চাদের দেখভাল তদারকির করায় এত বেশি ব্যস্ত ছিলেন যে তাদের মাঝে ধীরে ধীরে দূরত্ব তৈরি হওয়া শুরু করল। তাদের আলাপ আলোচনাগুলি আর আগের মত জমে উঠত না। এবং আমি মনে করি এটা ক্রিটিক্যাল যে জ্ঞান বাড়ানোর উদ্দীপনা অব্যাহত রাখার জন্য ক্রমাগত প্রচেষ্টা চালাতে হবে।

Posted in ইসলাম | এখানে আপনার মন্তব্য রেখে যান

গল্পগুলো অন্যরকম – ০১ / আরিফ আজাদ


1f0f2559e2575f71a8e757bb1b7569b5

সূর্যের সোনালী আভা বিধৌত ঝলমলে এক ভোর। ইসলামের একেবারে প্রথম দিককার সময়। নবুয়াত লাভ করে আস্তে আস্তে তাওহ্বীদের বাণী মানুষের কাছে প্রচার করছে এক যুবক। যুবকটির নাম মুহাম্মদ ইবনে আবদুল্লাহ।
তবে, মক্কা উপত্যকার সকল অধিবাসীদের কাছে এই যুবক অন্য একটি নামে পরিচিত। আল-আমীন। আল-আমীন অর্থ বিশ্বস্ত। তখন মাত্র গুটিকয়েক লোক ইসলামের সুশীতল ছায়ায় এসে শামিল হয়েছে। ডর ভয়হীন যুবকটা এই অল্প কয়েকজনকে নিয়েই রোজ বের হয় দাওয়াতের কাজে। লোকজনকে বলতো,- ‘শুনুন! আপনারা যার উপাসনা করছেন, তাদের আদতে কিচ্ছু করার ক্ষমতা নেই। এরা না নিজেরা কিছু শুনে, না কিছু বুঝে। দয়া করে আমার কথা শুনুন। আমার উপর বিশ্বজাহানের র’বের পক্ষ থেকে প্রত্যাদেশ নাযিল হয়েছে। আমি জানতে পেরেছি, আপনাদের উপাস্য দেবতারা পাথরের মূর্তি বৈ কিচ্ছু নয়। একমাত্র ইলাহ তো আল্লাহ। আপনারা এসব উপাসনা ছেড়ে সেই মহান সত্ত্বার ইবাদাত করুন। তিনি এক, অদ্বিতীয়…….’

সবাই তাঁর কথা শুনে খুব মজা পেলো। বলতে লাগলো,- ‘বলে কী ছোকরা! সেই যুগের পর যুগ ধরে আমরা যাদের উপাসনা করে আসছি তারা নাকি সত্য ইলাহ নয়। আর এই ছেলে এসে বলছে কীনা তার উপরে সত্য প্রত্যাদেশ নাযিল হয়েছে। দু’দিনের বৈরাগী, ভাতেরে কয় অন্ন…..’

সবাই ভাবলো ছেলেটার মাথা খারাপ হয়ে গিয়েছে। কিন্তু দিন দিন যখন এই ছেলেটার দল ভারি হতে লাগলো, মক্কাবাসীর কপালের ভাঁজ দীর্ঘ থেকে দীর্ঘ হতে শুরু করলো। এই ছেলেটাকে তো এভাবে স্বাধীনভাবে চলতে দেওয়া যায় না। কী করা যায় তাহলে? 
নষ্ট সমাজের একটি চিরাচরিত নিয়ম হচ্ছে, যখন কেউ ‘শুদ্ধ’ হবার কথা বলে, নষ্টের দল তার বিরুদ্ধে অপপ্রচার, কুৎসা রটিয়ে বেড়ায়। 
যুবকটার কপালেও এরকম অনেকগুলো অপবাদ জুটে বসলো। তাকে বলা হলো কবি, উন্মাদ, পাগল, যাদুকর ইত্যাদি। 
কিন্তু, এই ছেলে তো থামার নয়। দিন যায়, সপ্তাহ যায়, মাস যায়, আর এই ছেলের দল ভারি থেকে আরো ভারি হতে থাকে।।

মক্কা তখনও কুরাইশদের দখলে। তখনও ক্বাবা শরীফকে ঘিরে কিছু ধর্মীয় রীতি-নীতি পালন করতো মুশরিকরা। 
পবিত্র ক্বাবা ঘরের চাবি জমা ছিলো এক লোকের কাছে। লোকটা মুশরিক। নাম উসমান ইবনে তালহা।
এক সকালে, মুহাম্মদ (সাঃ) কিছু সাহাবীদের নিয়ে ক্বাবা প্রাঙ্গনে এসে উপস্থিত হলেন। কিন্তু, ক্বাবা ঘরের দরজা তালাবদ্ধ।
মুহাম্মদ (সাঃ) উসমান ইবনে তালহাকে বললেন,- ‘আমাকে ক্বা’বার চাবি দিন। আমি ভিতরে ঢুকবো….’
উসমান ইবনে তালহা অগ্নিশর্মা হয়ে বললেন,- ‘তোমাকে চাবি দিবো মানে? তুমি না তোমার পিতৃধর্ম ত্যাগ করেছো? তুমিই তো সেই যে এই ক্বা’বার ইলাহকে (ক্বাবার মধ্যে তখন যেসকল মূর্তি ছিলো তাদের উদ্দেশ্য করে) মিথ্যা বলে বেড়াচ্ছো। তোমাকে কখনোই চাবি দিবো না আমি। চলে যাও এখান থেকে….’

মুহাম্মদ (সাঃ) শান্ত গলায় বললেন,- ‘শুনুন! আজকে আমায় চাবি দিচ্ছেন না তো? ঠিক আছে। আজকে আমি চলে যাচ্ছি। কিন্তু একদিন আপনার হাতের ওই চাবি আমার হাতে থাকবে। আর সেদিন আমি যাকে ইচ্ছা এর রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব দিয়ে দেবো…..’

মুহাম্মদ (সাঃ) এর কথা শুনে উসমান ইবনে তালহা আবারো রেগে গেলেন। বললেন,- ‘শোন মুহাম্মদ, সেদিনটা কখনোই আসবে না। যদি আসেও, সেদিন কোন কুরাইশই অবশিষ্ট থাকবে না।’

মুহাম্মদ (সাঃ) হাসলেন। বললেন,- ‘সে দিনটা অবশ্যই আসবে, এবং কুরাইশরাও বর্তমান থাকবে। সেদিন কুরাইশদের বরং সম্মানিত (ইসলামের মাধ্যমে) করা হবে।’

এরপর কেটে গেছে অনেক বছর। যেদিন মুহাম্মদ (সাঃ) মক্কা বিজয় করেন, সেদিন ক্বা’বা চত্ত্বরে এসে তিনি ক্বা’বা শরীফের চাবি খুঁজতে লাগলেন। বলা হলো,- ‘এই চাবির সংরক্ষক উসমান ইবনে তালহা।’
মুহাম্মদ (সাঃ) হজরত আলী (রাঃ) কে বললেন উসমান ইবনে তালহার কাছ থেকে চাবি নিয়ে আসতে। আলী (রাঃ) উনার কাছে গিয়ে চাবি চাইলেন। কিন্তু উসমান ইবনে তালহা নিজ সিদ্ধান্তে অনড়। যেন- মক্কা বিজয় করেছে তো কি হয়েছে। প্রাণ থাকতে এই চাবি আমি মুহাম্মদের হাতে দিবো না।
আলী (রাঃ) কয়েকবার বলার পরেও যখন চাবি পেলেন না, তখন জোর করে উসমান ইবনে তালহার হাত থেকে চাবি নিয়ে আসেন। এনে মুহাম্মদ (সাঃ) এর হাতে দেন। মুহাম্মদ (সাঃ) ক্বা’বা শরীফের দরজা খুলে ভিতরে ঢুকলেন। ঢুকে সালাত আদায় করলেন। 
তখন, মক্কায় যারা হজ্ব করতে আসতো, তাদের পানি পান করাতো রাসূল (সঃ) এর চাচা আব্বাস (রাঃ)। তিনি বললেন,- ‘হে রাসূল (সাঃ), আপনি কী আজ থেকে মক্কার চাবি সংরক্ষণের দায়িত্বটা আমাকে দিবেন? তাহলে হাজ্বীদের পানি পান করানোর পাশাপাশি আমরা আরো একটি মহান দায়িত্ব পালনের সৌভাগ্য লাভ করতে পারতাম।’

ঠিক সেই মূহুর্তে জিবরাঈল (আঃ) ওহী নিয়ে আসলেন। নাযিল হলো সূরা আন-নিসা’র ৫৮ নম্বর আয়াত।

‘Allah commands you to deliver trusts to those worthy of them; and when you judge between people, to judge with justice’

‘(হে রাসূল) আল্লাহ আপনাকে নির্দেশ দিচ্ছেন যে, আমানতসমূহ হক্বদারের কাছে ফিরিয়ে দিতে, এবং যখন আপনি লোকদের বিচার করেন, তখন অবশ্যই তাদের সাথে ন্যায় বিচার করবেন….’

এই আয়াত নাযিল হয় ক্বা’বা শরীফের চাবি কেন্দ্রিক ঘটনাকে নিয়ে। উমর ইবনুল খাত্তাব (রাঃ) বলেন,- ‘আমি আল্লাহর রাসূল (সাঃ) কে আজকের (অর্থাৎ সেদিনের) আগে আর কখনোই এই আয়াত তিলাওয়াত করতে শুনিনি।

এই আয়াতে হক্বদারের কাছে তার আমানত ফেরত দেওয়ার কথা আছে। সে অবস্থায়, উসমান ইবনে তালহা’ই ছিলেন এই চাবির হক্বদার। তাই আল্লাহর রাসূল (সাঃ) আব্বাস (রাঃ) কে সেদিন ক্বা’বার চাবি দেন নি। হজরত আলী (রাঃ) কে বললেন উসমান ইবনে তালহাকে চাবি ফিরিয়ে দিয়ে আসতে।

আলী (রাঃ) উসমান ইবনে তালহার কাছে এসে কাঁচুমাচু করে বললেন,- ‘মাফ করে দাও আমাকে। তোমার হাত থেকে জোর করে আমি চাবি ছিনিয়ে নিয়েছি। এই নাও তোমার চাবি।’

উসমান ইবনে তালহা বিস্মিত হলেন। বুঝতে পারছিলেন না ঘটনা কী। তখন আলী (রাঃ) তৎক্ষণাৎ নাযিল হওয়া আয়াতটি তিলাওয়াত করে শুনালেন উসমান ইবনে তালহাকে।
উসমান ইবনে তালহা এই আয়াতের অর্থ বুঝতে পারলেন খুব ভালো করেই। এরকম উদারতা, ন্যায়বিচার, এবং অন্যের আমানতের প্রতি ইসলামের গুরুত্বারোপ দেখে তিনি বিমুগ্ধ হলেন।
সাথে সাথে তিনি ঘোষণা করলেন,-

‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ…..’

‘আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, আল্লাহ ছাড়া কোন উপাস্য নেই, এবং মুহাম্মদ (সাঃ) তাঁর প্রেরিত রাসূল।’

সেদিনই উসমান ইবনে তালহা (রাঃ) ইসলামের সুশীতল ছায়ায় শামিল হোন। এবং, এখন পর্যন্ত পবিত্র ক্বা’বা শরীফের চাবি সংরক্ষণ করে যাচ্ছেন হজরত উসমান ইবনে তালহা (রাঃ) এর বংশধরগন।

Posted in অধিকারীর অধিকার, ইসলাম, গল্প নয় সত্যিই | এখানে আপনার মন্তব্য রেখে যান

ভালো কাজের সংজ্ঞা – উস্তাদ নোমান আলী খান


dsc_1262

ভালো কাজের সংজ্ঞা কে নির্ধারণ করবে? এই পৃথিবীতে দুই ধরনের ভাল কাজ আছে। এটা একটু মনে রাখবেন। দুই ধরনের ভাল কাজ আছে। নৈতিক ভাল কাজ। আমি প্রতিবেশীর প্রতি ভাল। আমি কর্মক্ষেত্রে সৎ। আমি মানুষের সাথে ভালো ব্যবহার করি। আমি চুরি করি না। আমি মানুষকে ঠকাই না। এগুলো হচ্ছে নৈতিক ভাল কাজ। ঠিক আছে? এরপর আছে হলো ধর্মীয় ভাল কাজ। আমি হজ্জে যাই। আমি যাকাত দেই। আমি দৈনিক পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ি। আমি রামাদানে রোজা রাখি। এগুলো নৈতিক অর্থে ভালো কাজ না, এগুলো ধর্মীয় অর্থে ভালো কাজ। অনেক সময় মুসলিমরা এবং নন-মুসলিমরা, বিশেষ করে মুসলিমরা, আমরা এই দুটো জিনিসের মধ্যে পার্থক্য করে ফেলি। মুসলিম বিশ্বে আপনি এমন মানুষ খুঁজে পাবেন যারা নৈতিকভাবে ভালো। তারা তাদের পরিবারের সাথে ভালো। তাদের সন্তানদের যত্ন নেয়। তারা তাদের বাড়িতে দায়িত্বশীল। প্রতিবেশীদের সঙ্গে ভালো। কর্মক্ষেত্রে তারা সৎ। ভাল মানুষ। কিন্তু তাদের মধ্যে ধর্ম বলতে কিছু নেই। “ভাল হওয়ার জন্য আমার ধর্ম লাগে না”, তারা বলে। অপর মেরুতে আছে এমন মানুষ যারা নামাজ পড়ে, হজ্জে যায়। যাকাত দেয়। লম্বা দাড়ি আছে। খুব ধার্মিক পোশাক পরে। কিন্তু তারপরও তারা তাদের পরিবারের সাথে খারাপ ব্যবহার করে। ব্যবসায় মানুষকে ধোঁকা দেয়। অত্যন্ত অনৈতিক মানুষ। তো আমরা ভাল হওয়ার দুইটি মাত্রাকে আলাদা করে ফেলেছি। যা হলো নৈতিকতা এবং ধার্মিকতা।

আল্লাহ কুরআনে এই দুটিকে একসঙ্গে করে ফেলেন একটি আয়াতে, যেটাকে বলা হয় আয়াতুল বির। সদগুণের আয়াত। ভাল হওয়ার অর্থ কি ? আপনি যদি এই আয়াতটি নিয়ে পড়েন। তাহলে দেখবেন এটা দুটি জিনিসের সমাহার। এটা হল একটি সমন্বয় নৈতিক নীতির, যেমন কথা রাখা, ধৈর্যশীল হওয়া ইত্যাদি এবং ধর্মীয় নীতির, যেমন নামাজ কায়েম করা, যাকাত দেওয়া। এটা এক জায়গায় এই দুটো জিনিসের সমন্বয়। তো আপনি যদি মনে করেন ভাল হওয়ার সংজ্ঞা আপনি নিজে ব্যাখ্যা করবেন। সম্ভবত আপনি শুধু নৈতিক ভাল কাজের মধ্যে নিজেকে সীমাবদ্ধ করছেন। এবং আপনি ধার্মিক ভাল কাজগুলোকে উপেক্ষা করছেন, যেমন যে ধর্মানুষ্ঠানের কাজগুলো আল্লাহ আমাদের শিখিয়েছেন। (নামাজ, হাজ্জ, রোজা ইত্যাদি) কিন্তু আল্লাহ চান যে আমাদের মধ্যে এই দুটি গুণ (নৈতিক এবং ধর্মীয়) একসাথে থাকুক। আর তখনি একজন মানুষ পরিপূর্ণ ভাবে একজন ভাল মানুষ। নয়তো আপনি আসলে ভাল নয়, কারণ আপনি নিজের থেকে ভাল হওয়ার সংজ্ঞা ব্যাখ্যা করছেন এবং আপনি আল্লাহর সংজ্ঞাকে উপেক্ষা করছেন। আমরা আল্লাহর কাছে নির্দেশনা প্রত্যাশা করি কারণ আমরা নিজেরা সবকিছুর সংজ্ঞা ব্যাখ্যা করতে পারি না এবং আমরা চাই উনি যেন আমাদের ব্যাখ্যা করে সাহায্য করেন।

আয়াতুল বির এর বাংলা অনুবাদঃ
”সৎকর্ম শুধু এই নয় যে, পূর্ব কিংবা পশ্চিমদিকে মুখ করবে, বরং বড় সৎকাজ হল এই যে, ঈমান আনবে আল্লাহর উপর, কিয়ামত দিবসের উপর, ফেরেশতাদের উপর এবং সমস্ত নবী-রসূলগণের উপর, আর সম্পদ ব্যয় করবে তাঁরই মহব্বতে আত্নীয়-স্বজন, এতীম-মিসকীন, মুসাফির-ভিক্ষুক ও মুক্তিকামী ক্রীতদাসদের জন্যে। আর যারা নামায প্রতিষ্ঠা করে, যাকাত দান করে এবং যারা কৃত প্রতিজ্ঞা সম্পাদনকারী এবং অভাবে, রোগে-শোকে ও যুদ্ধের সময় ধৈর্য্য ধারণকারী তারাই হল সত্যাশ্রয়ী, আর তারাই পরহেযগার।”
[সূরা বাকারাঃ ১৭৭]

Posted in ইসলাম, সদ্ভাব ও সদ্ব্যবহার | এখানে আপনার মন্তব্য রেখে যান

পৃথিবীতে এত ধর্ম কেন?


এটা কিভাবে সম্ভব যে, পৃথিবীতে এতগুলো ধর্ম থাকা সত্ত্বেও মাত্র একটি ধর্মই সত্য? বাকি গুলো তবে কি? সবই কি মিথ্যা আর বানোয়াটি? ওই সব ধর্মের মহান ধর্মপ্রচারকরা কি তবে ভন্ড? তারা কি তবে ইশ্বরের দূত নয়? যদি তাই হয়ে থাকে তবে সেই একটি ধর্ম এবং ধর্মগুরু ছাড়াও বাকি গুলো এত জনপ্রিয়তা বা বিস্তৃতি লাভ করল কিভাবে?

এসব প্রশ্ন অনেক মানুষের মনেই জাগে। এটা স্বাভাবিক। এসবের উত্তর না জানার কারনে অনেকে সত্য থেকে দূরে থাকেন। অথবা সত্যকে জানার উতসাহ হারিয়ে ফেলেন। ইসলাম মুহাম্মাদ (সা.) -এর পূর্বের কোন ধর্মকেই সরাসরি সৃষ্টিকর্তার ধর্ম নয়, বলেনা। সেগুলো আল্লাহর দ্বীন এক সময় হলেও হতে পারে। ইসলাম বলে পৃথিবীতে এক লক্ষ্য চব্বিশ হাজার নবী বা ইশ্বরের দূত এসেছেন। মহান আল্লাহই তাঁদের নবী করেছেন। পৃথিবীর বিভিন্ন ভু খন্ড, সম্প্রদায় বা ভাষাভাষির লোকের কাছে নবী এসেছে। তাদের কাছে ধর্মের বাণী প্রচার করেছে। ইহুদি ধর্ম এক সময় আল্লাহর ধর্ম ছিল। খ্রিস্টান ধর্মও ছিল আল্লাহর মনোনীত দ্বীন। মুশা/মোজেস এবং ঈশা/যীষু (তাঁদের উপর শান্তি বর্ষিত হোক) আল্লাহর সন্মানিত নবী ছিলেন। কিন্তু মানুষ সময়ের সাথে তাঁদের বাতলে দেওয়া ধর্মকে পালটে ফেলেছে।

যখন এক নবীর বাতলে দেওয়া ধর্ম বা জীবন ব্যবস্থাকে মানুষ পালটে ফেলে, বদলে দেয়। এক আল্লাহর ইবাদত না করে যখন শিরক করা শুরু করে তখন আল্লাহ আবার নবী পাঠান। এভাবেই এত নবী এসেছেন দুনিয়ায়। যখন মুশার (আ) ধর্মকে ইহুদিরা বদলে ফেলল তখন আল্লাহ যীষুকে (আ) পাঠালেন। কিন্তু কিছু লোক তাকে আল্লাহর নবী বলে স্বীকার করল আবার কিছু লোক তাঁর বিরোধীতা করে শত্রুতা শুরু করল। ঠিক একই ব্যাপার হয় মুহাম্মাদ (সা.) এবং অন্যান্য নবীদের সময়েও। ঠিক এই কারনেই পৃথিবীতে এত ধর্ম।

এবার কথা হল, যদি বিখ্যাত সব ধর্ম এবং ধর্মগুরু আল্লাহর মনোনীত হয় তবে কেন ইসলাম মেনে চলতে হবে? উত্তরটা খুব সহজ। বাকি ধর্ম গুলো আর খাঁটি নেই। মানে বদলে গেছে, বিকৃত হয়েগেছে, পরিবর্তিত হয়েগেছে। আর একথা শুধু আমরা বলছিনা। পৃথিবীর তাবর তাবর ঐতিহাসিক, বিষেশজ্ঞরা বলেন। যেমন বিবেকানন্দ বলেছেন বেদের ৯০% পরিবর্তিত হয়েগেছে। আর কুর’আন যখন নাজীল হয় তখন সঙ্গে সঙ্গে তা লিখে ফেলা হত। তাই হাজার বছর আগের চামড়ায় লেখা কুর’আন, আমেরিকার কংগ্রেস লাইব্রেরির কুরান, ইস্তাম্বুলের মিউজিয়ামের কুরান কিংবা আপনার বাড়ির পাশের বইয়ের দোকানের কুরানের মধ্যে কোন তফাত নেই। অথচ বাজারে প্রায় ৬৬ রকমের আলাদা আলাদা বাইবেল পাওয়া যায়।

আরেকটা প্রশ্ন মনে জাগতে পারে, মুহাম্মাদের (সা) পর আর কোন নবী আসবেনা কি? উত্তর হল হ্যাঁ আসবেন। তবে তিনি আসবেন মুহাম্মাদের (সা.) অনুসারী হয়েই। তিনি নতুন কিছু প্রচার করবেন না। ইসলামের কথায় প্রচার করবেন। তিনি হলেন যীষু (আ)। তাঁর অনুসারীরা বাড়াবাড়ি করে তাঁকে আল্লাহর নবী থেকে আল্লাহর সন্তান বানিয়ে ফেলেছেন। সেই মিথ্যাচার দূর করবেন তিনি।

Posted in অমুসলিমদের চোখে ইসলাম, ইসলাম ও অনান্য ধর্ম | এখানে আপনার মন্তব্য রেখে যান

মুসলিম কখনও বিশ্বাসঘাতকতা করে না


একজন প্রকৃত মুসলিম কখনও বিশ্বাসঘাতকতা করতে পারেনা। এমনকি নিজের দুশমনের সাথেও না। মুসলিম হবে ইনসাফকারী। কোন ব্যক্তি বা সম্প্রদায়ের প্রতি বিদ্বেষের কারনে সে সুবিচার বর্জন করবেনা। বদলা নেওয়ার রাগেও সে কারও প্রতি অন্যায় করবেনা। একটা ঘটনা শুনুন। ইবনে হিশাম, সিরাতুর রাসুল (সা.) ইত্যাদি সিরাত গ্রন্থে বর্ণিত হয়েছে। আমি সংক্ষেপে বলছি –

মক্কার কাফেররা ষড়যন্ত্র করে কয়েকজন লোক পাঠায় মদিনায় মুহাম্মাদ (সা.) -এর কাছে। তারা মিথ্যা করে বলে, ‘আমাদের গোত্রে ইসলামের কিছু চর্চা আছে, দ্বীন শিক্ষা ও কুর’আন পড়ানোর জন্য কিছু জ্ঞানসম্পন্ন সাহাবীদের পাঠালে আমরা উপকৃত হবো।’ রাসুল (সা.) তাদের কথায় বিশ্বাস করে, দশ জনের একটি মুবাল্লিগ দল প্রেরণ করেন। কিন্তু কিছুদুর যেতেই তাদের উপর অতর্কিত হামলা করে প্রায় একশজন কাফের তীরন্দাজ। বিশ্বাসঘাতকতা করে মেরে ফেলা হয় আট জন সাহাবীকে। দুজন বেঁচে যান। তাঁরা হলেন, খোবায়েব বিন আদী (রা.) এবং যায়েদ বিন দাসেনাহ (রা.)। এই দুজনকে মক্কায় এনে বিক্রি করে দেওয়া হয়। এদের কেনেন দুইজন কাফের শুধুই হত্যা করার জন্য। বদর যুদ্ধে পিতৃহত্যার অন্যায়ভাবে বদলা নেওয়ার জন্য।

হত্যা করার আগে খোবায়েব (রা.) -কে হারেশ বিন আমেরের বাড়ীতে কয়েকদিন বন্দি করে রাখা হয়। এসময় তাকে খাবার দেওয়া হতনা। এমনকি জলও না। একদিন হঠাত, হারেসের ছোট বাচ্চা ছেলেটি ধারালো ছুরি নিয়ে খেলতে খেলতে খোবায়েব (রা.) -এর কাছে চলে আসে। তিনি শিশুটিকে আদর করে কোলে বসান। এই দৃশ্য দেখে বাচ্চাটির মা ভয় পেয়ে চিৎকার করে ওঠেন। (তিনি ভেবেছিলেন খোবায়েব (রা.) হয়ত বাচ্চাটির কোন ক্ষতি করবে বা মেরে ফেলবে বদলা নেওয়ার জন্য কারণ তাঁর মৃত্যু তো নিশ্চিত!)। তখন খোবায়েব (রা.) বলেন, ‘মুসলিম কখনও বিশ্বাসঘাতকতা করে না’।

*** খোবায়েব (রা.) -কে বিশ্বাসঘাতকতা করে ধরে আনা হয়, তাঁর সাথীদের হত্যা করা হয়, অন্যায়ভাবে তাঁকে বিক্রি করা হয়, কিছুদিনের মধ্যেই তাকে হত্যা করা হবে এতসব জানা সত্তেও তিনি নিজ শত্রুর বাচ্চা শিশুকে আদর করে কোলে বসান এবং কাছে ধারালো ছুরি পেয়েও বাচ্চাটিকে হত্যা করেননি বা পরিবারের অন্য কাউকেও মারেননি। বাচ্চাটির মা ভয় পেলে তাকে সান্ত্বনা দিয়ে বলেন মুসলিম কখনও বিশ্বাসঘাতকতা করেনা। অর্থাৎ বুঝিয়ে দেন নিশ্চিন্ত হও, তোমার শিশুর কিছু হবেনা।

Posted in ইসলাম | এখানে আপনার মন্তব্য রেখে যান

এক বেদুঈন মসজিদের ভেতরে প্রস্রাব করে দিল


বিশ্বনবী মুহাম্মাদ (সা.) এমন এক মহান মানুষ ছিলেন যাঁর সম্পর্কে যত জানবেন ততই অবাক হবেন, মুগ্ধ হবেন। তাঁর ক্ষমাশীলতা আর বিনয়, নম্রতা তুলনাহীন। শিক্ষা দেওয়ার সময়, ভুল সুধরে দেওয়ার সময়ও তিনি ছিলেন শ্রেষ্ঠ বিনয়ী শিক্ষক। একটা অসাধারণ শিক্ষনীয় হাদিস শুনুন। সবার জন্যই এটা খুবই শিক্ষনীয়। বিশেষ করে যারা দ্বীনি দাওয়াতের এবং ইসলাহর কাজ করেন তাদের জন্য।

আবু হুরাইরা (রা.) বলেন, এক বেদুঈন মসজিদের ভেতরে প্রস্রাব করে দিল। সুতরাং লোকেরা তাকে ধমক দিয়ে বকাবকি করতে লাগল। অনেকে তাকে মারতে উদ্যত হল। (কিন্তু) নবী (সা.) বললেন, ‘ওর প্রস্রাব আটকে দিয়ো না, ওকে ছেড়ে দাও’। সুতরাং তাকে ছেড়ে দেওয়া হল। সে প্রস্রাব শেষ করল। অতঃপর রাসুলুল্লাহ (সা.) তাকে ডেকে (নম্রতার সাথে, শান্তভাবে) বললেন, ‘এই মসজিদ গুলো কোন প্রকার পেশাব না নোংরা জিনিসের জন্য নয়। এ হল কেবল আল্লাহ তায়ালার যিকির, নামাজ ও কুর’আন পড়ার জন্য’।(মুসলিম/৬৮৭)। অন্য এক বর্ণনায় আছে, নবী (সা.) তাকে বলেন, ‘ওকে ছেড়ে দাও এবং ওর প্রস্রাবের উপর এক বালতি পানি ঢেলে দাও। কেননা তোমাদেরকে সহজ নীতি অবলম্বন করার জন্য পাঠানো হয়েছে, কঠোরনীতি অবলম্বন করার জন্য পাঠানো হয়নি’। [বুখারী/২২০; ৬১২৮]

এই চমৎকার ঘটনার শেষ এখানেই নয়। বেদুঈন ভুল/অপরাধ করেও নবী (সা.) এর কাছ থেকে এত সুন্দর বিনয়ী ব্যবহার পেয়ে মুসলিম হয়ে যান। পরে এই বেদুইন (আবার ভুল করে) নামাজের দু’আতে বলেছিল, ‘হে আল্লাহ! তুমি আমার ও মুহাম্মাদের প্রতি রহম করো। আর আমাদের সাথে কাউকে রহম করো না’। তা শুনে মুহাম্মাদ (সা.) তাকে বলেছিলেন, ‘তুমি তো প্রশস্ত (আল্লাহর রহমত)-কে সংকীর্ণ করে দিলে!’

এত ভুলের পরেও দয়ার নবী, বিনয়ী শিক্ষক মুহাম্মাদ রাসুলুল্লাহ (সা.) বেদুঈনের প্রতি কঠোর হোননি। বিরক্তও হোননি। নবীজীর নম্রতা ও অমায়িকতা দেখে সে স্বীকার করতে বাধ্য হয়ে বলেছিল, ‘আমার পিতামাতা মুহাম্মাদের জন্য কুরবান হোক। তিনি আমাকে গালি দেননি, বকাবকি করেননি এবং প্রহারও করেননি’। [আহমাদ/১০৫৩৩]

Posted in ইসলাম | এখানে আপনার মন্তব্য রেখে যান

বিক্রয়ের জন্য নহে


tumblr_n6r0vvxawr1sfxmouo1_500

লিখেছেনঃ রেহনুমা বিনত আনিস

আমার ক্যানাডিয়ান নওমুসলিমা ছাত্রী আয়শা- বয়স ১৯, পরীর মত সুন্দরী, সৌন্দর্য নিয়ে পড়াশোনা করছে। আমার কাছে আরবী পড়া শেখার পাশাপাশি ইসলাম সম্পর্কে কিছু কিছু তথ্য জেনে নেয়। ওর সাথে পরিচয় এই রামাদানে। সেদিন ইফতার পার্টি ছিল, রাতে কিয়ামুল লাইল। ইফতারের পর আমরা পাশাপাশি নামাজে দাড়ালাম। সামনে, পেছনে, পাশে এত মহিলা এবং বাচ্চারা গিজ গিজ করছে যে নামাজে মনোযোগ ধরে রাখা যুদ্ধসম কঠিন ব্যাপার। লক্ষ্য করলাম এর মাঝেই সে একমনে স্রষ্টার সাথে বাক্যালাপ চালিয়ে যাচ্ছে। এই ময়দানের মধ্যে সে যেন একাই দাঁড়িয়ে! জানতে পারলাম পাঁচ ওয়াক্তের পাশাপাশি সে এমন অনেক এক্সট্রা নামাজ পড়ে যার নামও অনেক জন্মগত মুসলিমের অজানা।

ইসলামের প্রতি ওর আগ্রহ আমাকে চমৎকৃত করল। সে ইসলাম গ্রহণ করেছে দু’বছর। কিন্তু সে ইসলামকে গ্রহণ করেছে আন্তরিকভাবে, ফলে সে এর সবটুকুই পালন করার জন্য আগ্রহী এবং যত্নশীল। দেখলাম সে এর মাঝেই ভারী সুন্দর বোরকা এবং স্কার্ফের কালেকশন করে নিয়েছে। ওর পোশাক আশাক থেকে সবকিছুতে রুচিশীলতার বহিঃপ্রকাশ। তবে এর সবটুকুই ইসলামের দৃষ্টিতে যতটুকু গ্রহণযোগ্য সে বিবেচনা মাথায় রেখে। যেমন যেখানে ক্যানাডায় নেইল পলিশ ছাড়া কোন স্টাইলিশ মেয়ের দেখা পাওয়া অস্বাভাবিক, ওর হাতে পায়ে কোথাও নেইল পলিশ নেই। স্কার্ফ বা ওড়না যখন যাই পরে কোনটিতেই একটি চুলও কোনদিন বেরিয়ে থাকতে দেখিনি।

রাতে কুর’আনের আলোচনার সময় বাংলায় আলোচনা হওয়ায় বেচারী বুঝতে পারছিলোনা। আমি তখন ওর আগ্রহ দেখে কিছু অংশ মুখে এবং কিছু অংশ লিখে বুঝিয়ে দিতে লাগলাম। সে কৃতজ্ঞচিত্তে সব শুষে নিতে লাগল এবং মাঝে মাঝে প্রশ্ন করে সঠিকভাবে বুঝে নিল। যখন আলোচনা শেষে নামাজ শুরু হবে সে এসে আমাকে বলল, “আমি কি আপনার পাশে দাঁড়াতে পারি? তাহলে আমি আপনাকে দেখে আমার posture গুলো ঠিক হচ্ছে কি’না ঠিক করে নিতে পারব“। আমি তো হতবাক! অনেক সময় অনেক আত্মীয় বন্ধুবান্ধবকে স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে বিশেষ করে রুকু এবং সিজদায় posture এর ভুলের ব্যাপারে বলতে গিয়ে তাদের বিরাগভাজন হয়েছি। আর সে কি’না বলে নামাজ সঠিকভাবে পড়ার জন্য posture ঝালাই করে নেবে! ওর আগ্রহ আবারও আমাকে চমৎকৃত করল।

এর পর থেকে কুর’আনের লিঙ্ক নেয়া থেকে শুরু করে ভ্রূ তোলার মাসয়ালা পর্যন্ত নানান বিষয়ে ওর সাথে আলাপ হয়েছে। ভাল লেগেছে যে সে কোন বিষয়ে জানার সাথে সাথে তাকে গ্রহণ করেছে, কুতর্কের আশ্রয় নেয়নি। অথচ এতটা স্বতঃস্ফুর্তভাবে ইসলামের সকল হুকুম আহকামকে আঁকড়ে ধরার আগ্রহ আমি অনেক ইসলাম জানা মানুষের মাঝেও দেখিনি!

ক’দিন আগে নতুন করে ওর ইসলামের বোধ এবং অনুভূতির পরিচয় পেয়ে আবারও মুগ্ধ হলাম। ক্যানাডার একটি বৃহৎ ফ্যাশন হাউজ একটি ফ্যাশন শোর আয়োজন করছে। একপর্বে সমাপ্য শোটিতে মডেলিং করার জন্য ওকে ৪০,০০০ ক্যানাডিয়ান ডলার অফার করা হয়। সে স্রেফ না করে দেয় এই বলে, “আমার ধর্ম আমাকে নিজেকে পুঁজি করার অনুমতি দেয়না”। শুনে এত ভাল লাগল! মনে হোল এই মেয়েটি খানিকটা দেরীতে ইসলামকে খুঁজে পেয়েছে, কিন্তু সেই তো পেয়েছে এর আসল আস্বাদ! দোকানে, লাইব্রেরীতে, মসজিদে ওর মত এমন আরো অনেক নওমুসলিমা বোনকে দেখে পুলকিত হই, আশা জাগে আগামী দিনে ইসলামের সম্ভাবনাময় ভবিষ্যত নিয়ে। আবার ভয় হয় আমরা যারা জন্মগতভাবে একে পেয়েও হেলায় হারিয়েছি তারা বুঝি আবার অপ্রয়োজনীয় এবং অপাংক্তেয় হয়ে পড়ি!

*****************

Posted in আদর্শ মুসলিম ব্যক্তিত্ব, ইসলাম, ইসলাম ও নারী, উপদেশ, সংগৃহিত | এখানে আপনার মন্তব্য রেখে যান

সালাফী মতাদর্শ কী?


zjdjdjz

মূল: আল্লামা শাইখ মুহাম্মদ নাসির উদ্দীন আলবানী রহ.

অনুবাদক: আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল

প্রশ্ন: সালাফী মতাদর্শ কী এবং তা কিসের সাথে সম্পৃক্ত?

উত্তর: সালাফী মতাদর্শ বলতে বুঝায় পূর্বসূরীদের মূলনীতি ও আদর্শ। এটি সম্পৃক্ত সালাফ তথা পূর্বসূরীদের সাথে।

সুতরাং আলেমগণ কী অর্থে ‘সালাফ’ শব্দ ব্যবহার করেন তা আমাদের জানা আবশ্যক। তাহলে বুঝা যাবে সালাফী কাকে বলে বা সালাফী শব্দের মর্ম কি।

‘সালাফ’ দ্বারা উদ্দেশ্য হল এমন তিন শতাব্দির ব্যক্তিবর্গ যাদেরকে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এই উম্মতের শ্রেষ্ঠতম মানুষ হিসেবে স্বাক্ষ্য প্রদান করেছেন। যেমন বুখারী ও মুসলিম সহ অন্যান্য হাদীস গ্রন্থে মুতাওয়াতির সূত্রে একদল সাহাবী রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম থেকে বর্ণনা করেছেন যে,

خَيْرُ النَّاسِ قَرْنِي ، ثُمَّ الَّذيِنَ يَلُونَهُمْ ، ثُمَّ الَّذيِنَ يَلُونَهُمْ

“সর্বোৎকৃষ্ট মানুষ হল, আমার যুগের মানুষ অত:পর তাদের পরবর্তী যুগের মানুষ অত:পর তাদের পরবর্তী যুগের মানুষ।” (বুখারী ও মুসলিম)

এই তিন যুগের মানুষকে আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সর্বশ্রেষ্ঠ মানুষ হিসেবে স্বাক্ষ্য প্রদান করেছেন। ‌আর সালাফীগণ এই পূর্বসুরীদের সাথে সম্পৃক্ত।

আমরা সালাফ শব্দের অর্থ জানতে পারলাম। এবার আমি দুটি বিষয় বলব:

প্রথম বিষয়, মুসলিম বিশ্বে বর্তমানে বিভিন্ন জামায়াত বা দলের মত সালাফী আন্দোলন কোন এক বা একাধিক ব্যক্তির সাথে সম্পৃক্ত নয়। বরং এই সম্পৃক্ততা হল পবিত্র ও নিষ্কলুষ একটি আদর্শের সাথে। কারণ, পূর্বসুরীগণ সম্মিলিতভাবে গোমরাহীর উপর থাকবেন-এটা সম্ভবপর নয়। পক্ষান্তরে পরবর্তীত যুগের মানুষের ব্যাপারে শরীয়তে প্রশংসা বর্ণিত হয় নি। বরং অধিকাংশ ক্ষেত্রে তাদের নিন্দাবাদ বর্ণিত হয়েছে। যেমনটি পূবোর্ক্ত হাদীসের শেষাংশে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইঙ্গিত করে বলেছেন:

ثُمَّ يأتي مِن بعدِهِم أقوامٌ يَشْهَدُون ولا يُسْتَشْهَدُون إلى آخر الحديث

“এরপর তাদের পরে এমন সব মানুষের আবির্ভাব ঘটবে যারা স্বাক্ষ্য দিবে কিন্তু তাদের নিকট স্বাক্ষ্য চাওয়া হবে না।” তিনি অন্য আরেক হাদীসেও এ ইঙ্গিত দিয়েছেন। উক্ত হাদীসের আলোকে বুঝা যায় যে, তিনি সেখানে মুসলিমদের একটি দলের প্রশংসা এবং ‘অধিকাংশ’ লোকের নিন্দা করেছেন। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন:

বিস্তারিত পড়ুন

Posted in ইসলাম, সংশোধন | এখানে আপনার মন্তব্য রেখে যান